একটি অষ্টকোণ বাক্সের গল্প

খণ্ড গল্প ১ঃ

শুরুটা বছর ২ আগের। ২০১৪ সাল। ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি তে তখন আন্ডারগ্রাজুয়েট ডিগ্রি এর শেষ ধাপটা পূরণ করার জন্য থিসিস এর টপিক নিয়ে একটু দৌড়াদৌড়ি করছি আর কি। চারজনের একটা টিম আমরা। একটু একটু ইচ্ছা আছে স্যাটেলাইট রিলেটেড কিছু করতে পারি কিনা। থিসিস এর মাঝামাঝি সময়ে ইন্টার্নশিপ এর জন্য জাপানের উদ্দেশ্যে উড়াল দিলাম ২জন, কাফি আর মায়সূন। আসি এমন একটা ল্যাব এ যেটার ধ্যান জ্ঞান ই সব মহাকাশ ছোঁয়ার সাথে জড়িত। ২জনের ঘাড়ে দায়িত্ব ও পড়ল গবেষণার জন্য স্যাটেলাইট নিয়েই। যেহেতু স্পেস ল্যাব, স্বাভাবিক ই আমাদের কাছেও জানতে চাওয়া হয় আমাদের কি প্লান স্পেস নিয়ে। বিভিন্ন ফোরামে আমাদের কাছে জানতে চাওয়া হয় আমাদের প্রত্যাশার কথা।, আমাদের স্বপ্নের কথা। “ইউনিসেক গ্লোবাল মীটিং” এ ২০১৪ তে আমরা অংশগ্রহণ করি বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে। সেখানে সবাই উপস্থাপন করছে নিজেদের দেশের স্পেস নিয়ে গবেষণার কথা। কোন কিছু না ভেবেই খুব বেশী ই আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলেই ফেলি যে “২০২১ সালের মধ্যেই আমরা আমাদের তৈরি স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপন করব আর স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের এই আনন্দের মধ্য দিয়েই আমরা উৎযাপন করব স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উৎসব।“

 

খন্ড গল্প ২ঃ

ইন্টার্নশিপ করে ২জন দেশে ফিরলাম ২০১৫ এর মার্চ এ। স্বপ্ন, কল্পনা, ভাবনা। আমাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথ কি? আমরা ভাবছি। তার ই মধ্যে চলছে আমাদের ৪ জনের থিসিস এর কাজ। থিসিস টাইটেল “ইউএভি বেসড রিমোট সেন্সিং ফর ডেভলপিং কান্ট্রিজ”।  ইউএভির জন্য আমরা বেছে নিয়েছি প্লাটফর্ম কোয়াডকপ্টার। আমাদের গবেষণার জন্য যে কোয়াডকপ্টার লাগবে, কেনা জিনিষে মন ভরল না। আবার ওরকম জিনিষ কিনতে গেলেও আনতে হবে দেশের বাইরে থেকে আর সাথে খরচের ব্যাপারটা তো থাকছেই। লোকাল মার্কেট থেকে সস্তায় পানির পাইপ কিনে নিজেরাই ডিজাইন করে আমাদের গবেষণা উপযোগী কোয়াডকপ্টার বানিয়ে ফেললাম। শুধু বানিয়েই ছাড় দিলাম না, এটার উপর এক্সপেরিমেন্ট এর পরিমাণ এতোটাই ছিল যে কোয়াডকপ্টার ভাঙ্গার সংখ্যাটা এক্সপোনেনশিয়ালী বৃদ্ধি পেল। যতবার ভাঙি ততবার ই আবার বানাই। এটার একটা নামও দিয়ে দিলাম “পর্যবেক্ষক”। সাধারণত রিমোট সেন্সিং এর জন্য ব্যবহার করা হয় স্যাটেলাইট থেকে সংগ্রহ করা ছবি, তথ্য। আমাদের দেশে যেহেতু স্যাটেলাইট নেই, তো আমরা এই সংগ্রহ করা তথ্য কিনে নিয়ে আসি বিভিন্ন  বাইরের দেশের বানিজ্যিক স্যাটেলাইট  কোম্পানি থেকে। তো আমাদের স্যাটেলাইট বানানোর ওই ইচ্ছে থেকেই আমাদের এই থিসিস করা; একটা অল্টারনেটীভ প্লাটফর্ম বানানো রিমোট সেন্সিং এর তথ্য সংগ্রহের জন্য।

image10

লিঙ্কঃ http://www.team-centurions.com/2015/07/29/uav-based-remote-sensing-for-developing-countries/